Sunday, 30 Jul 2017 09:07 ঘণ্টা

 সিলেটের জকিগঞ্জে এডিপি’র লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তদন্তে

Share Button

 সিলেটের জকিগঞ্জে এডিপি’র লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তদন্তে

cnbangladesh.comজকিগঞ্জ প্রতিনিধি  : সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার ৬নং-সুলতানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম,উপজেলা পরিষদের মহিলা বাইস চেয়ারম্যান এহিয়া বেগম,ঠিকাদার আব্দুল আজিজ’র বিরুদ্ধে ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী (এডিপি)’র টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে ।

জানা গেছে, অর্থ বছরে বার্ষিক উন্নয়নের জন্য উপজেলা পরিষদে (এডিপি) কতৃক এক কোটি বিয়াল্লিশ লাখ পচাঁনব্বই হাজার টাকা প্রকল্প গ্রহণ করা হয় । মোট ৩১টি প্রকল্পসহ দুটি পর্যায়ে ৯৯টি প্রকল্পের কাজ হাতে নেয়া হয় । এরমধ্যে ৬নং সুলতানপুর ইউনিয়নে ১২টি প্রকল্প নির্ধারন করে বরাদ্দ দেয় উপজেলা পরিষদ । এই ইউনিয়নের সকল বরাদ্দকৃত কাজ গত ৩০শে জুন ২০১৭ইং-তারিখের মধ্যে শেষ করার কথা । কিন্তু রহস্যজনক কারনে ৬নং-সুলতানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম,উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এহিয়া বেগম,ঠিকাদার আব্দুল আজিজ প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে বেশ কয়েকটি প্রকল্পের কাজ না করিয়ে সবার অগোচরে গোপনে বিল উত্তলন করে নেন । বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী (এডিপি) এর খাত ওয়ারী বিভাজনসহ প্রকল্পের তালিকায় দেখা যায়,৫৭নং-খাদিমান জামে মসজিদের রাস্তা ইট সলিং,১৩(ক)গোয়াবাড়ী গ্রামে কুতুব আলীর বাড়ীর পার্শ্বের বাগীর খালের উপর কালভার্ট নির্মান,(খ) গোয়াবাড়ী পূর্ব জামে মসজিদের পার্শ্ব হতে দক্ষিনমূখী হয়ে সিরাজ মিয়ার বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা ইট সলিং দ্বারা উন্নয়ন ও পশ্চিম জামে মসজিদের আশু মিয়ার বাড়ী পর্যন্ত ইট সলিং এবং ১৪নং-কুশিয়ারা ডাউক হতে উত্তরমূখী কবির মিয়ার বাড়ীর দক্ষিন সীমানা পর্যন্ত ইট সলিংয়ের কাজ করার কথা থাকলেও কোন ইট সলিং না করে সরকারী বিল উত্তলন করে নিয়েছেন বরাদ্দের লাখ লাখ টাকা । একপর্যায় স্থানীয় এলাকায় বিষয়টি জানাজানি হলে ওই এলাকার সচেতন নাগরীকগণ ফুঁসে ওঠেন । এবং এ টাকা আত্মসাতকারীদের বিরুদ্ধে ইউনিয়নবাসীর পক্ষে ইলাবাজ গ্রামের মৃত সুনই মিয়ার ছেলে আব্দুর রব,সহিদাবাদ গ্রামের মৃত হবিব আলীর ছেলে আব্দুল হান্নানসহ একাধিক ব্যাক্তি বিগত ১৩জুলাই ২০১৭ইং-তারিখে জেলা প্রশাসক,সিলেট বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ।

অভিযোগে প্রকাশ,এছাড়াও অত্র ইউনিয়নের আরো একাধিক বরাদ্দের কাজে ছয়’নয় দেখিয়ে হাতিয়ে নিয়েছেন বড় অংন্কের টাকা কড়ি । এসকল টাকা আত্মসাতের গডফাদার হিসেবে কাজ করছেন ঠিকাদার আব্দুল আজিজ । তার ছত্র ছায়ায় থেকে ইউ/পি চেয়ারম্যান ও উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ক্ষমতার দাপুটে উপজেলা প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সরকারের উন্নয়নের কাজে ব্যাঘাত ঘটিয়ে নিজেদেরকে গড়ে তুলছেন কোটিপতি । এবং ক্ষুন্ন করছেন আ.লীগ সরকারের ভাবমূর্তী । বর্তমানে স্থানীয় এলাকায় এবিষয়টি নিয়ে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে ।

এব্যাপারে ৬নং-সুলতানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মুটোয়ফোনে আলাপকালে তিনি বলেন,হান্ড্রেড পারসেন্ট কাজ হয়েছে । আমার বিরুদ্ধে একটি মহল অপপ্রচার চালিয়ে মিথ্যা নাম দিয়ে ডিসি’র নিকট একটি আবেদন দাখিল করেছে। এবং  তা সম্পন্ন ভ‚য়া বলে তিনি দাবি করেন । এসময় তিনি জানান, আজ রবিবার (৩০জুলাই) ওই অভিযোগখানি জকিগঞ্জ ইউএনও অফিসে এসে পৌছেসে। এটা তদন্ত হলে সত্যতা বেরিয়ে আসবে ।

অপরদিকে আবেদনকারী আব্দুল হানান মুটোয়ফোনে বলেন,প্রথম দরখাস্তকারীকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে চেয়ারম্যান তার আন্ডারে নিয়ে নিয়েছে । তবে আমিত তার মত হতে পারবনা বলে জানান তিনি ।
অন্যদিকে ঠিকাদার আব্দুল আজিজ’র মুটোয়ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ৫৭নং-খাদিমান জামে মসজিদের রাস্তা ইট সলি য়ের কাজের বরাদ্দকৃত টাকা মসজিদ কমিটিকে দেয়া হয়েছে । তারা তাদের মত করে কাজ করার জন্য । অন্যান্যগুলো সম্পন্ন কাজ করে বিল উত্তলন করা হয়েছে বলে দাবি করেন । তবে এবিষয়ে মহিলা ভাইস চেযারম্যনের মুটোয়ফোনে আলাপের চেষ্টা করেও যোগযোগ করা সম্বব হয়নি ।

এদিকে জকিগঞ্জ উপজেলা ভারপ্রাপ্ত অফিসার’র সাথে মুটোয়ফোনে আলাপ করলে তিনি আবেদন প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বলেন, ঘটনার সত্যতা তদন্তের জন্য একজন কৃষি অফিসার ও পিআইও’কে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে । তদন্ত শেষ না হলে কিছুই বলা সম্ভব নয় ।

এই সংবাদটি 1,014 বার পড়া হয়েছে